মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক আবদুল কুদ্দুস মাখন

758
আবদুল কুদ্দুস মাখন

আবদুল কুদ্দুস মাখন ছিলেন মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, সাবেক সংসদ সদস্য, স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতা ও ডাকসুর সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং রাজনীতিবিদ। সত্তর দশকের শুরুতে দেশে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ আন্দোলনে তিনি অগ্রণী ভূমিকা রেখেছিলেন। ১৯৬৬ সালে শেখ মুজিবুর রহমানের ছয় দফা আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেছিলেন তিনি। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পূর্বাঞ্চলীয় সেক্টরের অধীনে তিনি মুজিব বাহিনীর অন্যতম সংগঠক ছিলেন।

আবদুল কুদ্দুস মাখন ১৯৪৭ সালের ১ জুলাই ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার পুনিয়াউটে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মোহাম্মদ আবদুল আলী। মাতা আমেনা খাতুন। সাত ভাই দুই বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন তৃতীয়। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক সম্পন্ন করেন এই জাতীয় বীর।

১৯৭০ সালে আবদুল কুদ্দুস মাখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র ইউনিয়নের (ডাকসু) সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৭১ সালের ১ মার্চ স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ গঠনে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের অপরাপর নেতা ছিলেন নূরে আলম সিদ্দিকী, আ.স.ম আবদুর রব ও শাহজাহান সিরাজ। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকবাহিনী কর্তৃক গণহত্যা শুরুর পূর্ব পর্যন্ত স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদই ছিল স্বাধীনতা আন্দোলনের পুরোভাগে।

ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের অন্যান্য নেতাসহ আবদুল কুদ্দুস মাখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবন চত্বরে ১৯৭১ সালের ২ মার্চ স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করেন এবং পরদিন তিনি তাঁর সহকর্মীসহ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে জাতির জনক বলে ঘোষণা দেন। ৩ মার্চ ছাত্র পরিষদের এক জনসভায় স্বাধীনতার প্রথম ইস্তেহার পাঠ করা হয়। বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা, জাতীয় সঙ্গীত, রাষ্ট্রীয় চার মূলনীতি ও বঙ্গবন্ধুকে জাতির জনক ঘোষণা দেওয়া হয় ওই ইস্তেহারে। আবদুল কুদ্দুস মাখনসহ ছাত্রনেতারা মার্চ মাসে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত আইন অমান্য আন্দোলন ও অসহযোগ আন্দোলন সংগঠিত করেন। ছাত্রনেতৃবৃন্দ সারা দেশে ২৩ মার্চ স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন।

স্বাধীনতা যুদ্ধেও আব্দুল কুদ্দুস মাখনের ছিল অসামান্য অবদান। তিনি ছিলেন পূর্বাঞ্চলীয় লিবারেশন কাউন্সিলের ছাত্র বিষয়ক প্রতিনিধি। সকল মুক্তিযোদ্ধাদের রিক্রুমেন্ট, ট্রেনিং ও অস্ত্র সরবরাহের দায়িত্ব ছিলো তাঁর কাছে। স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করার কাজে কলকাতায় অনুষ্ঠিত ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী মেলায় বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। ১৯৭৩ সালের প্রথম সাধারণ নির্বাচনে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-নবীনগর নির্বাচনী এলাকা থেকে। ওই সালেই তিনি ছাত্রলীগ, ছাত্র ইউনিয়ন ও যুবলীগের সমন্বয়ে গঠিত দলের সদস্য হয়ে সোভিয়েত ইউনিয়নের বিভিন্ন অঞ্চল সফর করেন। তিনি আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্যও ছিলেন।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক ও তাঁর পরিবারকে হত্যার পর যে রাজনৈতিক পটপরিবর্তন হয়েছিল তাতে গা ভাসাননি আব্দুল কুদ্দুস মাখন। ২৩ আগস্ট রাতে তিনি গ্রেপ্তার হন। সাজাও হয়েছিল সামরিক আইনে। ১৯৭৮ সালের ১২ নভেম্বর তিনি জেল থেকে মুক্তি পান। এরপর তিনি আওয়ামী রাজনীতিতে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। মৃত্যুর আগে তিনি আওয়ামীলীগের জাতীয় পরিষদের সদস্যও ছিলেন। আজীবন সংগ্রামী এই নেতা ১৯৯০ সালে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। ১৯৯৪ সালের ১০ ফেব্রয়ারি আব্দুল কুদ্দুস মাখন মৃত্যুবরণ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here