প্রবীন শিক্ষাবিদ, জাতীয় অধ্যাপক কবীর চৌধুরী!

535
কবীর চৌধুরী Kabir Chowdhury

কবীর চৌধুরী বাংলাদেশের একজন জাতীয় অধ্যাপক, প্রবীন শিক্ষাবিদ, লেখক, সংস্কৃতি ও সমাজকর্মী, প্রাবন্ধিক ও অনুবাদক। তিনি সরকার কর্তৃক দেশের জাতীয় অধ্যাপক হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯২৩ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈতৃক নিবাস নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার গোপাইরবাগ গ্রামের মুন্সী বাড়ি। পিতা খান বাহাদুর আবদুল হালিম চৌধুরী এবং মা আফিয়া বেগম। তার পুরো নাম আবুল কালাম মোহাম্মদ কবীর। তবে তিনি অধ্যাপক কবীর চৌধুরী নামে সমধিক পরিচিত, তার ডাকনাম মানিক। কবীর চৌধুরীর ছোট ভাই শহীদ বুদ্ধিজীবী অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী। তাঁর স্ত্রী মেহের কবীরও ছিলেন শিক্ষাবিদ ও সমাজকর্মী।

১৯৩৮ সালে তিনি ঢাকা কলেজিয়েট স্কুল থেকে ম্যাট্রিকে সপ্তম স্থান অর্জন করেন। ১৯৪০ সালে ঢাকা ইন্টামিডিয়েট কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় চতুর্থ স্থান অর্জন করেন। পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগ থেকে অনার্সে ১৯৪৩ সালে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম এবং ১৯৪৪ সালে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম.এ প্রথম শ্রেণীতে প্রথম হয়ে স্বর্ণপদক অর্জন করেন। পরে ১৯৫৭-৫৮ সালে ফুলব্রাইট বৃত্তিধারী হিসেবে আমেরিকার মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়ে মার্কিন সাহিত্য সম্পর্কে এবং ১৯৬৩-৬৫ সালে সাদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লোকপ্রশাসন সম্পর্কে উচ্চতর গবেষণা সম্পন্ন করেন।

তিনি দীর্ঘ জীবন বিভিন্ন কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে কাজ করেছেন। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর কবীর চৌধুরী ন্যাশনাল এডুকেশন কাউন্সিলের প্রথম সদস্য-সচিব পদে যোগ দেন। ১৯৭৩ সালে তাঁকে শিক্ষা ক্রীড়া ও সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব পদে নিয়োগ দেয়া হয়। স্বল্পকাল শিক্ষাসচিব পদে কর্মরত থাকার পর কবীর চৌধুরী ১৯৭৪ সালে স্বেচ্ছায় চাকুরিতে ইস্তফা দেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজির অধ্যাপক পদে যোগদান করেন। ১৯৮৩ সালে অবসর গ্রহণের পূর্ব পর্যন্ত তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মকালে তিনি নাট্যকলা বিভাগে খন্ডকালীন শিক্ষক হিসেবেও পাঠদান করতেন। অবসর গ্রহণের পর তিনি ইংরেজি বিভাগে সংখ্যাতিরিক্ত অধ্যাপক এবং খন্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। কবীর চৌধুরীকে ১৯৯৮ সালে জাতীয় অধ্যাপকের মর্যাদায় ভূষিত করা হয়। এছাড়াও তিনি বাংলা একাডেমীর ডিরেক্টর এবং পরে ডিরেক্টর জেনারেল পদে কর্মরত ছিলেন।

কবীর চৌধুরীর রচিত, সম্পাদিত ও অনূদিত গ্রন্থের সংখ্যা দুই শতেরও বেশি। তিনি ইংরেজি ও বাংলা উভয় ভাষায় গ্রন্থ রচনা ও অনুবাদ করেছেন। ১৯৯৮ সালে জাতীয় অধ্যাপক ভূষিত হওয়ার আগেই অবশ্য তিনি তিন দশকব্যাপী গণযোগাযোগ ও জনকল্যাণধর্মী কর্মের সুবাদে জাতীয় ব্যক্তিত্বে পরিণত হন। কবীর চৌধুরী অর্ধ শতকেরও বেশি সময় ধরে বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সংগঠনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে শিক্ষা, শান্তি ও আন্তসাংস্কৃতিক সমঝোতার উন্নয়নে কাজ করেছেন।

কবীর চৌধুরী দেশে ও বিদেশে বিভিন্ন সম্মাননা লাভ করেছেন। তিনি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সম্মাননা স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার ও একুশে পদক লাভ করেন। এ ছাড়া তিনি বাংলা একাডেমী পুরস্কার, বঙ্গবন্ধু জাতীয় পুরস্কার, মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন সাহিত্য পুরস্কার, শেরে বাংলা পুরস্কার, কলকাতার এশিয়াটিক সোসাইটি প্রদত্ত ট্যাগোর পীস অ্যাওয়ার্ড এবং পশ্চিমবঙ্গের উইলিয়ম ক্যারি রিসার্চ অ্যান্ড স্টাডি সেন্টার প্রদত্ত উইলিয়ম ক্যারি গোল্ড মেডেল লাভ করেন।

কবীর চৌধুরী ২০১১ সালের ১৩ ডিসেম্বর ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মসজিদে তাঁর জানাজা শেষে গার্ড অব অনারসহ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাঁকে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here